বাংলা ফন্ট

ছাতকে জলাবদ্ধতায় পাঁচশত একর বোরো জমি অনাবাদি

10-01-2018
নিজস্ব প্রতিবেদক ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম

 ছাতকে জলাবদ্ধতায় পাঁচশত একর বোরো জমি অনাবাদি
সিলেট: ছাতকে জলাবদ্ধতায় জুনিয়ার হাওরের পাঁচশত একর বোরো জমি অনাবাদী থাকার আশংকা দেখা দিয়েছে। উপজেলার দক্ষিণ খুরমা ও চরমহল্লা ইউনিয়নের শস্য ভান্ডার খ্যাত জুনিয়ার হাওরে পানি নিস্কাশন ব্যবস্থা না থাকায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। ঘানিউরা নদী থেকে হাওরের পানি নিস্কাশনের নালাটি এখন পলি মাটিতে ভরাট হওয়ায় এখানে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়।

জানা যায়, উপজেলার দু’টি ইউনিয়নের জুনিয়ার হাওরে ধনপুর, রাউতপুর, চেচান, বাউর, হরিশ্বরন, হাতধলানী ও টেটিয়ারচর, শাখারুচর, পুরাকাটি ও জালালীচর গ্রামের ৮শতাধিক কৃষক এ হাওরে চাষাবাদ করে আসছেন। প্রায় ৭বছর থেকে হাওরে পানি নিস্কাশনের একমাত্র নালা পলি মাটিতে ভরাট হওয়ায় শুষ্ক মৌসুমে হাওরে চরম জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়।

এতে ফসল উৎপাদন কার্যক্রম মারাত্মকভাবে ব্যাহত হওয়ায় কৃষকরা অনাহারে বসবাস করছে। কৃষকরা উপজেলা কৃষি অফিসে যোগাযোগ করে খাল খননের জন্যে বরাদ্দের আবেদন করলেও কৃষি অফিস তাদেরে কোন সহযোগিতা করেনি। স্থানীয় সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক ২০১৫ সালে খাল খনন করে দিলে ওইবছর চাষ হলেও পরবর্তীতে আর সম্ভব হয়নি।

এব্যাপারে ২০১৭সালের ৬ডিসেম্বর এলাকাবাসির পক্ষে হাজি আনা মিয়া, ইখতিয়ার উদ্দিন ও জুয়েল আহমদ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ করলেও আইনগত কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

এখন হাওরের কৃষি জমিতে ৫থেকে ৬ফুট পানি রয়েছে বলে কৃষক জানান। শীঘ্রই খাল খনন না করলে জলাবদ্ধতায় হাওরের সব বোরো জমি অনাবাদি থাকার সম্ভাবনা রয়েছে।

ছাতক উপজেলা কৃষি অফিসার জানান, এব্যাপারে একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে শীঘ্রই খাল খননের উদ্যোগ নেওয়া হবে।

ঢাকারিপোর্টটোয়েন্টিফোর.কম/এইএমএল

সর্বশেষ সংবাদ